বস্তুর ওপর তাপের প্রভাব বর্ণনা করো? - অ্যান্সগুরু
15 বার প্রদর্শিত
"পড়াশোনা" বিভাগে করেছেন

এই প্রশ্নটির উত্তর দিতে দয়া করে প্রবেশ কিংবা নিবন্ধন করুন ।

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন
পদার্থের অণু পরমাণুর গতির সাথে সম্পর্কিত শক্তির যে রূপ তাই তাপশক্তি।আর তাপমাত্রা হচ্ছে তাপ শক্তির একটি গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশক।এ অধ্যায়ে আমরা তাপমাত্রাকে সংজ্ঞায়িত করবো এবং পরিমাপের একক আলোচনা করবো।তাপ প্রয়োগ বা অপসারণে কঠিন পদার্থের আকারের পরিবর্তন ঘটে,তরল পদার্থের আয়তন পরিবর্তিত হয়,বায়বীয় পদার্থের আয়তন ও চাপের পরিবর্তন ঘটে।কঠিন,তরল ও বায়বীয় পদার্থ এক অবস্থা থেকে অন্য অবস্থায় রূপান্তরিত হয়।বস্তুর ওপর তাপের এ সকল প্রভাব নিচে আলোচনা করা হবে।


তাপ (Heat) :আগুনের কাছে একটি ধাতব বস্তু ধরলে দেখা যায় কিছুক্ষণ পরেই সেটি বেশ গরম হয়ে ওঠেছে।আমাদের কাছে মনে হয় আগুন থেকে 'একটা কিছু বস্তুতে এসে একে উত্তপ্ত করে তুলেছে।এই একটা কিছুই হচ্ছে তাপ।


অষ্টাদশ শতাব্দীর শেষ ভাগ পর্যন্ত বিজ্ঞানীদের ধারণা ছিল তাপ ক্যালরিক (caloric) নামে এক প্রকার অতি সৃক্ষ্ম তরল বা বায়বীয় পদার্থ।গরম বস্তুতে ক্যালরিক বেশি থাকে এবং শীতল বস্তুতে তা কম থাকে।কোনো বস্তুতে ক্যালরিক প্রবেশ করলে তা গরম হয় আর চলে গেলে তা শীতল হয়।


১৭৭৮ সালে কাউন্ট রামফোর্ড প্রমাণ করেন ক্যালরিক বলে বাস্তবে কিছু নেই।তাপের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আছে গতির।তিনি কামানের নল তৈরির সময় ধাতুর টুকরাকে ড্রিলমেশিন দিয়ে ফুটো করার সময় লক্ষ করেন,যে ছোট ছোট ধাতুর টুকরা ছিটকে আসছিল সেগুলো অত্যন্ত উত্তপ্ত।তিনি চিন্তা করেন ড্রিল চালাতে যে যান্ত্রিক শক্তি ব্যয় হয়েছে তার থেকেই তাপের উদ্ভব হয়।এই যান্ত্রিক শক্তিই ধাতব টুকরাগুলোর অণুগুলোতে গতিশক্তির সঞ্চার করে টুকরোগুলোকে উত্তপ্ত করে।


প্রকৃতপক্ষে তাপ পদার্থের অণুগুলোর এলোমেলো গতির ফল।পদার্থের অণুগুলো সবসময় গতিশীল অবস্থায় থাকে।কোনো পদার্থের মোট তাপের পরিমাণ এর মধ্যস্থিত অণুগুলোর মোট গতিশক্তির সমানুপাতিক।এখন কোনো বস্তুতে তাপ প্রদান করা হলে এর অণুগুলো ছুটাছুটি বৃদ্ধি পায়,ফলে এর গতিশক্তিও বেড়ে যায়।তাপ পদার্থের আণবিক গতির সাথে সম্পর্কিত এক প্রকার শক্তি যা ঠাণ্ডা বা গরমের অনুভূতি জন্মায়।তাপ এক প্রকার শক্তি কেননা তাপ কাজ সম্পাদন করতে পারে।তাপশক্তি অন্য রকম শক্তি থেকে পাওয়া যায়,আবার তাপকে অন্য শক্তিতেও রূপান্তরিত করা যায়।যেমন: পেট্রোল বা ডিজেল ইঞ্জিনে জ্বালানি তেল দহনের ফলে রাসায়নিক শক্তি তাপ শক্তিতে রূপান্তরিত হয়।আর এ তাপ শক্তি বয়লারের পানিকে বাষ্পে রূপান্তরিত করে ইঞ্জিন চালায়।অর্থাৎ,তাপশক্তি এখানে যান্ত্রিক শক্তিতে রূপান্তরিত হয়।দুই হাতের তালু পরস্পরের সাথে ঘষলে গরম অনুভব হয়- এখানে যান্ত্রিক শক্তি তাপ শক্তিতে রূপান্তর হয়।


তাপের একক: তাপ যেহেতু শক্তির একটি রূপ,তাই তাপের একক হবে শক্তির তথা কাজের একক অর্থাৎ,জুল । বিশ্বব্যাপী এককের আন্তর্জাতিক পদ্ধতি চালুর পূর্বে তাপের সবচেয়ে প্রচলিত একক ছিল ক্যালরি।

এক ক্যালরি তাপ উৎপন্ন করতে 4.2 জুল যান্ত্রিক বা তড়িৎশক্তি ব্যয় করতে হয় বা এক ক্যালরি তাপ দিয়ে 4.2 জুল কাজ পাওয়া যায়।সুতরাং 1 ক্যালরি = 4.2 জুল ।


তাপমাত্রা (Temperature): দুটি বস্তুকে তাপীয় সংস্পর্শে আনা হলে এদের মধ্যে তাপের আদান-প্রদান ঘটতে পারে।তাপের এই আদান-প্রদান বস্তু দুটির তাপের পরিমাণের ওপর নির্ভর করেনা - নির্ভর করে বস্তুদ্বয়ের তাপীয় অবস্থা বা উত্তপ্ততার ওপর।

আমরা জানি তরলের প্রবাহ তরলের পরিমাণের ওপর নির্ভর করে না - নির্ভর করে তরলের উচ্চতার ওপর।কোনো পাত্রের তরলের পরিমাণ অন্য পাত্রের তরলের পরিমাণের চেয়ে অনেক কম।কিন্তু স্টপ কর্ক খুলে দিলে প্রথম পাত্র থেকে দ্বিতীয় পাত্রে তরল প্রবাহিত হবে যতক্ষণ পর্যন্ত না উভয় পাত্রের তরল স্তম্ভের উচ্চতা সমান হয়।তেমনিভাবে উত্তপ্ততর বস্তু থেকে শীতলতর বস্তুতে তাপ প্রবাহিত হয়।বস্তুর উত্তপ্ততার পরিমাপ করা হয় তাপমাত্রা বা উষ্ণতা দ্বারা।যে বস্তুর তাপমাত্রা বেশি সে বস্তু তাপ হারায় আর যে বস্তুর তাপমাত্রা কম সে বস্তু তাপ গ্রহণ করে।তাপ গ্রহণ করলে বস্তুর তাপমাত্রা বাড়ে আর তাপ অপসারিত হলে তাপমাত্রা কমে।

তাপমাত্রা হচ্ছে কোনো বস্তুর তাপীয় অবস্থা যা নির্ধারণ করে ঐ বস্তুটি অন্য বস্তুর তাপীয় সংস্পর্শে এসে বস্তুটি তাপ গ্রহণ করবে না বর্জন করবে।

তাপমাত্রার একক: আন্তর্জাতিক পদ্ধতিতে তাপমাত্রার একক কেলভিন।এ একক চালুর পূর্বে তাপমাত্রার প্রচলিত একক ছিল ডিগ্রি সেলসিয়াস - যা কেলভিনের পাশাপাশি এখনও ব্যবহারিক ক্ষেত্রে চলে।স্বাভাবিক চাপে গলন্ত বরফের এবং ফুটন্ত পানির তাপমাত্রার ব্যবধানের একশত ভাগের এক ভাগকে এক ডিগ্রি সেলসিয়াস ধরা হয়।বরফের গলনাঙ্ককে ধরা হয় 0°C এবং পানির স্ফুটনাঙ্ক ধরা হয় 100°C । পানির ত্রৈধ বিন্দুর ওপর ভিত্তি করে কেলভিনের সংজ্ঞা দেওয়া হয়।

কেলভিন: পানির ত্রৈধ বিন্দুর তাপমাত্রার 1/273 ভাগকে এক কেলভিন বলে।যে নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় ও চাপে পানি তিনটি অবস্থাতেই অর্থাৎ,বরফ,পানি এবং জলীয়বাষ্পরূপে সহ অবস্থান করে তাকে ত্রৈধ বিন্দু বলে।এ ত্রৈধ বিন্দুর তাপমাত্রাকে ধরা হয় 273K । এ হিসাবে বরফের গলনাঙ্ক 273K এবং পানির স্ফুটনাঙ্ক 373K। সুতরাং বরফের গলনাঙ্ক এবং পানির স্ফুটনাঙ্কের মধ্যে তাপমাত্রার পার্থক্য হচ্ছে 100K ।

সেলসিয়াস স্কেলের সাথে কেলভিনের সম্পর্ক: যেহেতু বরফের গলনাঙ্ক সেলসিয়াস স্কেলে 0°C এবং 273K এবং পানির স্ফুটনাঙ্ক সেলসিয়াস স্কেলে 100°C আর কেলভিনে 373K,সুতরাং দেখা যাচ্ছে তাপমাত্রার পার্থক্য সেলসিয়াস স্কেলে এবং কেলভিন স্কেলে একই।

1°C তাপমাত্রার পার্থক্য = 1 K তাপমাত্রার পার্থক্য

তাপমাত্রার পার্থক্য = Del.theta K তাপমাত্রার পার্থক্য।

কিন্তু কোনো কিছুর তাপমাত্রা সেলসিয়াস স্কেলে যত কেলভিন তার চেয়ে 273 বেশি।


তাপমাত্রার প্রতীক: তাপমাত্রার প্রতীক হচ্ছে থিটা এবং T । সাধারণত তাপমাত্রা °C এ পরিমাপ করা হলে,একে থিটা দিয়ে আর কেলভিন হলে একে T দিয়ে প্রকাশ করা হয়।যেহেতু তাপমাত্রা পরিমাপের যন্ত্র থার্মোমিটারগুলো ডিগ্রি সেলসিয়াসে দাগাঙ্কিত থাকে এবং দুটি তাপমাত্রার পার্থক্য সেলসিয়াস স্কেল এবং কেলভিনে একই হয় তাই এই বই এ তাপমাত্রার জন্য প্রধানত থিটাই ব্যবহার করা হয়েছে।কিন্তু যে সকল সমীকরণ বা সূত্র কেবল তাপমাত্রার কেলভিন এককের জন্য প্রযোজ্য সে সকল স্থানে (যেমন,গ্যাসের সূত্রাবলি) সেখানে তাপমাত্রার জন্য T ব্যবহার করা হয়েছে।


তাপের প্রভাব: কোনো বস্তুতে তাপ প্রয়োগ করলে বা তাপ অপসারণ করলে সাধারণত তাপমাত্রার পরিবর্তন বা অবস্থার পরিবর্তন, আয়তনের পরিবর্তন,বায়ুমণ্ডলের চাপের পরিবর্তন,চুম্বকের চুম্বকত্ব লোপ বা তড়িৎ পরিবাহকের রোধের পরিবর্তন ইত্যাদি প্রভাব পরিলক্ষিত হয়।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
1 উত্তর
1 উত্তর
1 উত্তর
27 নভেম্বর 2021 "পড়াশোনা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Md. Redowan lslam
অ্যান্সগুরু বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি অনলাইন কমিউনিটি। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করতে পারবেন ৷ আর অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে অবদান রাখতে পারবেন ৷

1,381 টি প্রশ্ন

1,164 টি উত্তর

5 টি মন্তব্য

50,758 জন সদস্য

6 Online Users
4 Member 2 Guest
Today Visits : 3968
Yesterday Visits : 9030
Total Visits : 337506
...